Home

অবশেষে চট্টগ্রামের চন্দনাইশে বদলি হলেন রমগতির পিআইও রিয়াদ

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ  অবশেষে চট্টগ্রামের চন্দনাইশে বদলি হলেন রমগতির  পিআইও রিয়াদ । লক্ষ্মীপুর রামগতি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সেই রিয়াদ হোসেনকে চট্টগ্রামের চন্দনাইশ বদলি করা হয়েছে। রামগতিতে পদায়ন করা হয়েছে চন্দনাইশ উপজেলার পিআইও জহিরুল ইসলামকে। গতকাল মঙ্গলবার রিয়াদকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি (রিলিজ) দেন লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ। পদায়ন হওয়া জহিরুল রামগতিতে যোগদান করা পর্যন্ত অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করবেন লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার পিআইও মোশারফ হোসেন। রামগতি উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের প্রশাসন-১ অধিশাখার উপসচিব ড. মো. হাবিব উল্লাহ বাহারের সই করা চিঠিতে পিআইও রিয়াদের বদলিপূর্বক পদায়ন করা হয়েছে। তিনি কমলনগর উপজেলায় আতিরিক্ত দায়িত্ব পালনকালে বিতর্কিত কর্মকান্ডে সমালোচিত হয়। পিআইও রিয়াদ হোসেনের বিভিন্ন সমালোচনার সংবাদ বাংলাটিভিসহ একাধিক গণমাধ্যমে প্রচার হয়।  জেলা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, পিআইও রিয়াদ পাশের কমলনগর উপজেলায় অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত পালনকালে কার্যালয় থেকে ‘ঘুষের’ ১৬ লাখ টাকা উধাও হয়। এজন্য তিনি কার্যালয়ের সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর আবদুল বাকেরসহ ৪ জনকে থানায় নিয়ে রাতভর আটক রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরদিন আটকদের থানা থেকে ছাড়িয়ে নেন তিনি। তখন টাকার বিষয়ে পিআইও রিয়াদ অসঙ্গতিপূর্ণ ও বহুমুখি বক্তব্য দিয়েছিলেন। কার্যালয়ে টাকার উৎস খুঁজতে তদন্ত কমিটি করেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ। বিষয়টি গণমাধ্যমে গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ হয়। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শতরুপা তালুকদারের তদন্ত প্রতিবেদন ও সুপারিশের প্রেক্ষিতে পিআইও রিয়াদকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।  জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার পিআইও মোশারফ হোসেন বলেন, বদলির কারণে রামগতির কর্মর্তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে । পদায়ন হওয়া কর্মকর্তা যোগদান করা পর্যন্ত আমাকে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। উল্যেখ্য , লক্ষ্মীপুর কমলনগর উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) রিয়াদ হোসেনের কার্যালয় থেকে ২২ লাখ টাকা চুরির অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য পিআইওর সঙ্গে নিজ অফিসের কর্মচারীদের সাথে কথাবার্তা হয়। কিন্তু কোন ধরনের সমাধান না হওয়ায় অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর আবদুল বাকের এবং মেহেদী হাসানসহ ৪ কর্মচারীকে থানায় ডাকা হয়েছে। ৪ জনের  মধ্যে মেহেদী হাসান পিআইও এর একান্ত জন । রিয়াদ হোসেন রামগতি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা। কমলনগর উপজেলার শূন্যপদে তিনি অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন । ২২ লক্ষ টাকা চুরিকে কেন্দ্র করে পিআইও রিয়াদের বিরুদ্ধে থলের বিড়ালের মত বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নিতী প্রকাশ হতে শুরু করে । এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ঠিকাদারের অভিযোগ, পিআইও রিয়াদ প্রত্যেকটি কাজেই ঘুষ নেয়। ঘুষ ছাড়া তিনি কোন ফাইল বা বিলের চেকে সই করেন না।

Related Articles

how do you feel about this website ?

Back to top button
%d bloggers like this: