Home

লক্ষ্মীপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ছাত্রলীগ নেতার পরিবারে শোকের মাতম

নিজস্ব প্রতিবেদক :   লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ইউপি নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত সাজ্জাদুর রহমান সজিবের পরিবারে থামছে না কান্নার রোল। পরিবারের ২ ছেলের মধ্যে ছোট ছেলেকে হারিয়ে দিশেহারা বিধবা মা শামসুন্নাহার।

এ ঘটনায় নিহতদের স্বজন ও এলাকাবাসী দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। তবে এ ব্যাপারে মুখ খুলতে নারাজ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা।

পুলিশ সুপার বলেছেন, ‘সহিংসতার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

 

নিহত সজিব রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটির সভাপতি ও লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি উপজেলার নয়নপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

জানা যায়, তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনে রবিবার (২৮ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের নয়নপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের বাইরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় গুরুতর আহত হন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সজিব। তাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানান, সকাল থেকে নির্বাচনী কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের পক্ষে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন সজিব। বিকেলের দিকে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে কেন্দ্রের বাইরে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় প্রতিপক্ষের লোকজন লাঠি দিয়ে সজিবের পায়ে ও মাথায় আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটে পড়েন। এলাকাবাসী ও স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্বজনরা বলেন, ‘সজিবকে কেন্দ্র থেকে ডেকে নিয়ে ৪/৫জন মিলে পিঠিয়ে হত্যা করেছে। আমরা এ হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি জানাচ্ছি।’

প্রত্যক্ষদর্শী জসিম উদ্দিন বলেন, ‘হঠাৎ কয়েকজন সন্ত্রাসী অতর্কিতভাবে সজিবের ওপর হামলা চালায়। বাধা দিতে গেলে আমাকেও পিঠিয়ে আহত করেছে। আমরা হত্যাকারিদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’ পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান বলেন, ‘সহিংসতার ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। জড়িতদের গ্রেপ্তার করে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

Related Articles

how do you feel about this website ?

Back to top button
%d bloggers like this: