কমলনগররামগতিলক্ষ্মীপুর

লক্ষ্মীপুরে সিত্রাংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন ইউএনও কামরুজ্জামান, জড়িয়ে পড়েন নদীপাড়ের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের ভালোবাসায়

লক্ষ্মীপুরে সিত্রাংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন ইউএনও কামরুজ্জামান

ডালিম কুমার দাস টিটু ঃ লক্ষ্মীপুরে সিত্রাংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দেখতে যান কমলনগর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান ।  সাথে থেকে এলাকা পরিদর্শন করেন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাষ্টার সায়েফ উল্যাহ । এসময় নদী পাড়ের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ভালোবাসায় জড়িয়ে পড়েন তিনি । তুলে দেন তাদের হাতে সামান্য কিছু উপহার।

তিনি বলেন, নদীর পাড়ের এই সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের অকৃত্রিম ভালোবাসায়  আমি মুগ্ধ । তাদের মিষ্টি হাসি আমার প্রাণ জুড়িয়ে যায়। আমি ভুলে যাই ভেদ বিবেদ , ভুলে যাই ধনী গরিবের ভেদাভেদ , ডুবে যাই  প্রকৃতির সাথে ,যত ক্লান্তি সব দূর হয়ে যায় ওদের তৃপ্ত হাসিতে । যতদিন বাঁচবো মানুষ , মনুষ্যত্ব আর মানবতার জন্য কাজ করে যাবো এই হোক আমাদের সকলের প্রত্যয়। জেলার কমলনগর উপজেলাটি একটি ভাঙ্গন কবলিত এলাকা এই উপকুলীয় এলাকাটিতে বেশিরভাগ মানুষ দরিদ্রসীমার নিচে বসবাস করে । নদীতে মাছ ধরে , নৌকা চালিয়ে , কৃষি কাজই তাদের জীবিকার প্রধান উৎস । অনেক চাওয়ার মাঝে তাদের চাওয়াটা খুবই অল্প ।

তারা চায় সারাদিনের পরিশ্রমের পর তিনবেলা তিনমুঠো ভাত আর সন্ধ্যার পর একটু স্বস্তির নিশ্বাস ছাড়িয়ে সারাদিনের ক্লান্তি দূর করে একটু নিদ্রা । সকালের মোরগ ডাকা ভোরে ঘুম ভেঙ্গে পান্তাভাতের সাথে কাাঁচা মরিচ যেন প্রতিদিনের রুটিন হয়ে যায়। এরপর আবার শুরু জীবিকার জন্য সংগ্রাম । এভাবেই চলতে থাকে এদের সংগ্রামী জীবন ।

সরকারের সকল ধরণের সুযোগ সুবিধা যেন সঠিকভাবে পায়, এই অসহায় মানুষগুলো যেন বঞ্চিত না হয় সেই লক্ষ্যে কাজ করছেন বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান । সেই সাথে সুখে দুঃখে ভালোবাসার চাদর দিয়ে জড়িয়ে রেখেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার সায়েফ উল্যাহ । সিত্রাংয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে সরকারের দেয়া সুবিধা তাদের মাঝে পৌঁছে দিতে কাজ করছেন এই কর্মকর্তা । উল্যেখ্য , কমলনগর উপহজলার নির্বহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান যোগদানের পরপরই উপজেলার প্রতিটি সেক্টরে পরিবর্তনের সু-বাতাস বইছে ।

ভালোবেসেছেন উপজেলার মানুষগুলোকে । অন্যায়কে অন্যায় এবং ভালোকে ভালো বলতে বদ্ধ পরিকর এই কর্মকর্তা । তাইতো উপজেলার মানুষগুলোও তাকে ভালোবেসেছেন মন থেকে । মাত্র দুই বছরে সরকারের সকল সুযোগ সুবিধা এবং দারিদ্র বিমোচন , আর্থ -সামাজিক উন্নয়নে উপজেলার জনগনের জন্য খুব বড় ধরণের ভূমিকা রেখেছেন এই কর্মকর্তা । বাংলাদেশের প্রতিটি উপজেলায় এমন কর্মকর্তা থাকলে বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ সোনার বাংলায় রুপ নেয়া সময়ের ব্যাপার এমনটাই জানালেন বিশিষ্টজনরা।

Related Articles

how do you feel about this website ?

Back to top button
%d bloggers like this: